যে সব বিশ্ববিদ্যালয় সরকার দ্বারা পরিচালিত হয় না তাদের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় বলে। এধরনের বিশ্ববিদ্যালয় সাধারণত সরকার থেকে আর্থিক সাহায্য পায় না। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সরকারি আইন মেনে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং একটি মঞ্জুরী কমিশন দ্বারা অনুমোদিত কিন্তু এর কর্মকান্ডে সরকারি নিয়ন্ত্রণ থাকে না। পৃথিবীর বেশীরভাগ দেশে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। বাংলাদেশ সহ বিশ্বের বহু দেশে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় হতে বেশি।

বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় আইন, ১৯৯২ দ্বারা বাংলাদেশে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত ও পরিচালনা করা হয়। বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের তথ্য অনুযায়ী বর্তমানে ১০৬ টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় চালু আছে।

 

সর্বশেষ ১০৬তম বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমোদনের তথ্য।

রাজধানীর উত্তরায় ‘মাইক্রোল্যান্ড ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি’ নামে বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন ও পরিচালনার অনুমোদনের আদেশ জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ।

নতুন বিশ্ববিদ্যায়ল নিয়ে দেশে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা এখন ১০৬টি। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোক্তা ও প্রতিষ্ঠাতা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম শরীফ। গত ১৬ জুন তাকে অনুমোদনের চিঠি পাঠানো হয়েছে। তিনি বর্তমানে ইউনিভার্সিটি অব ডেভেলপমেন্ট অল্টারনেটিভের উপাচার্যের দায়িত্বে আছেন।

জানা গেছে, ২৩টি শর্তে নতুন বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, কমপক্ষে ২৫ হাজার বর্গফুট আয়তনের নিজস্ব অথবা ভাড়া করা ভবন থাকতে হবে। কমপক্ষে তিনটি অনুষদ এবং প্রত্যেকটির অধীনে ছয়টি বিভাগ, প্রয়োজনীয় শ্রেণিকক্ষ, লাইব্রেরি, ল্যাব, কমনরুম, সেমিনারসহ পর্যাপ্ত অবকাঠামো থাকতে হবে।

এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা কার্যক্রম সম্পর্কিত পরিকল্পনা প্রণয়ন করে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) থেকে অনুমোদন নিতে হবে।

এই বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের জন্য উদ্যোক্তারা ২০১৪ সালে আবেদন করেন সরকারের কাছে। দীর্ঘ প্রক্রিয়ায় তা যাচাই-বাছাই শেষে অনুমোদন দেওয়া হল।

Facebook Comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here